হৃদপিণ্ড সুস্থ রাখার কার্যকরী কিছু উপায়!

এই পোস্ট 64 of 94 পর্বে অন্তর্ভুক্ত ফেসবুক ইমো ব্যাবহার করুন

হৃদপিণ্ড বা হার্ট আমাদের দেহের গুরুত্বপূর্ণ একটি অঙ্গ। তাই হার্টের সুস্থতা সকলেই একান্ত কাম্য। কিন্তু আজকাল বেজাল খাদ্য আর ব্যস্ত জীবন-যাত্রার কারণে শরীরের সুস্থতার দিকে আমরা মোটেও নজর দেইনা। তাই নানা রকম শারীরিক সমস্যার সাথে সাথে হার্টেও সমস্যা দেখা দেয়।

তাই জেনে নিন এমন কিছু কার্যকরী উপায় যাতে সহজেই আপনার হার্ট থাকবে সুস্থ। আমেরিকান হার্ট এসোসিয়েশন সম্প্রতি হার্ট সুস্থ রাখতে কিছু পরামর্শ দিয়েছেন।

সেগুলোর মধ্যে উল্লেখ্যযোগ্য হলো- রক্তচাপ নিয়ন্ত্র, কলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণ, রক্তে সুগারের মাত্রা কমানো, শারীরিক পরিম্রম করা, ভালো খাওয়া, বাড়তি ওজন কমানো এবং ধূমপান বন্ধ।

আমেরিকান হার্ট এসোসিয়েশন হার্টের এক গবেষণার জন্য ৩,২০১ জনকে প্রায় ১২ বছর ধরে পরীক্ষা করেন। তাদের গড় বয়স ৫৯ বছর। গবেষণা চলাকালে ১৮৮ জন পুরোপুরি সুস্থ হন।

হৃদপিণ্ড সুস্থ রাখার উপায়গুলো দেখে নিন-

-আপনি যদি ধূমপায়ী হয়ে থাকেন সর্বপ্রথম ধূমপান করার এই বাজে অভ্যাসটি ত্যাগ করুন।

-প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় এমন কিছু খাবার রাখুন যেগুলোতে আছে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। মাছ, কারন মাছের তেল হার্টের জন্য খুবই ভালো। তাছাড়া ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিডও হার্টের জন্য অনেক উপকারি।

-কিছু ভালো অভ্যাস গড়ে তুলুন যেগুলো আপনার হার্টকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করবে। মানসিক চাপ একটু নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য মেডিটেশন, যোগব্যায়াম, পছন্দের কাজ করা, পছন্দের গান শোনা, ইয়োগা, বাইকিং, জগিং ইাত্যাদি খুব উপকারি।

-ওজন বাড়া এবং দেহে মেদ জমা কার্ডিওভ্যস্কুলার রোগের অন্যতম প্রধান কারণ। অতিরিক্ত ওজন হৃদপিণ্ডের উপর অনেক বাড়তি চাপ ফেলে, এতে ধীরে ধীরে হৃদপিণ্ড নিজের কর্মক্ষমতা হারাতে থাকে। তাই নিজের ওজনটার দিকে একটু বিশেষ নজর দিনে এবং ওজন নিয়ন্ত্রণের যথাসাধ্য চেষ্টা করে যান।

-বয়স অনুযায়ী বছরে ২/১ বার ডাক্তারের কাছে যান নিয়মিত চেকআপের জন্য। বিশেষ করে বংশে কারো কার্ডিওভ্যস্কুলার রোগজনিত সমস্যা থাকলে একটু বিশেষ নজর দেয়া উচিত।

No Responses

Write a response