স্মার্ট মুভ

e8670bc572e789c583e072958decc2e7-24কাজের জন্য হোক বা যোগাযোগ—এমনকি নিজের বিনোদনের জন্য আজকাল দুর্দান্ত সব প্রযুক্তি রয়েছে। আর এসব প্রযুক্তি শুধু কাঠখোট্টা যন্ত্রপাতির আদলেই নেই, রীতিমতো যেন একেকটা ফ্যাশন অনুষঙ্গ। প্রযুক্তির এসব অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে ঘর থেকে বেরুলে আপনি সব সময়ই থাকবেন যোগাযোগের আওতায়। ঘর বা অফিসের বাইরে থেকেও আপনি সামলাতে পারবেন সবই। আপনার স্মার্ট মুভের সঙ্গী হতে পারে কী কী প্রযুক্তি তা দেখে নেওয়া যাক।

.গুগল গ্লাস
এটি গুগলের তৈরি এমন এক চশমা, যেটা স্মার্টফোনের পর্দার মতোই সব তথ্য আপনার চোখের সামনে তুলে ধরবে। এতে আছে ছোট্ট একটি অপটিক্যাল হেড–মাউন্টেট ডিসপ্লে, যাতে আপনি দেখতে পারবেন কোনো ফোন এসেছে কি না, পড়তে পারবেন ই–মেইল। ছবি ও ভিডিও ধারণ করে এটি। কথা বলে একে নিয়ন্ত্রণ করা যায়। আট ফুট দূর থেকে ২৫ ইঞ্চি পর্দার টিভির দৃশ্য দেখতে যেমন লাগে এতেও তেমন লাগবে।
ইয়ারফোন
জনপ্রিয় প্রযুক্তি। চলতি পথে গান শুনতে বা ফোনের সঙ্গে লাগিয়ে কথা বলা যায় এটি দিয়ে।
আই–পড/এমপিথ্রি প্লেয়ার
নিজের মতো গান শুনতে এর জুড়ি নেই। ডিজিটাল ঘরানার গান এতে রেখে ইচ্ছেমতো শোনা যায়।
স্মার্টওয়াচ
পরিধেয় প্রযুক্তির মধ্যে এ পর্যন্ত সফল ও জনপ্রিয় ধরা হচ্ছে এই স্মার্টওয়াচ বা স্মার্টগিয়ারকে। এটা সাধারণ ঘড়ির মতো সময় দেখাবে, পাশাপাশি তার ছাড়াই যুক্ত থাকবে স্মার্টফোনের সঙ্গে। ফোন কল, ই–মেইল এলে দেখা যাবে এতে। কল করা বা রিসিভ করাও যায় এতে। 
পেনড্রাইভ
নানা ধরনের কম্পিউটার ফাইল বহন করার জন্য।
স্মার্টফোন
শুধু ফোন নয় এটি। মুঠোর ভেতরেই পেয়ে যাবেন কম্পিউটারের অনেক সুবিধা। যোগাযোগ, বিনোদন ও কাজ—সবই করে দেয়
স্মার্টযুগের এই সঙ্গী।
ল্যাপটপ কম্পিউটার
বহনযোগ্য কম্পিউটার। কম্পিউটারের সব কাজই এতে করা যায়।
বহনযোগ্য চার্জার
স্মার্টফোন, ট্যাবলেট ইত্যাদির
ব্যাটারির চার্জ একটা বড় সমস্যা।
এই যন্ত্র সে সমস্যার সমাধান দেবে। এটা থেকেই স্মার্টফোন বা ট্যাবের
চার্জ করে নেওয়া যায়।
ট্যাবলেট কম্পিউটার
পর্দা ছুঁয়ে ছুঁয়ে ল্যাপটপের প্রায় সব কাজই করা যাবে এটি দিয়ে। বেশি রেজল্যুশনের বড় পর্দা থাকায় ছবি, ভিডিও দেখা বা মাল্টিমিডিয়া উপস্থাপনা দেখানোর জন্য আদর্শ। তারহীন ওয়াই–ফাই দিয়ে ইন্টারনেটে যুক্ত হওয়া যায়। আবার মোবাইল ফোনের সংযোগের সিমকার্ডও ব্যবহার করা যায় অনেক সিমকার্ডে।
আরও যা সঙ্গে থাকতে পারে
বাসা বা অফিসের বাইরে ইন্টারনেট ব্যবহারের জন্য পোর্টেবল ওয়াই–ফাই রাউটার সঙ্গে রাখা যায়।
ভালো মানের ছবি তোলার জন্য আছে ডিজিটাল ক্যামেরা বা ডিএসএলআর ক্যামেরা।
সেলফি তোলার জন্য সেলফি স্টিকও হতে পারে স্মার্ট মুভের সঙ্গী।
মোবাইল ফোন বা স্মার্টফোন হাত ছাড়া ব্যবহারের জন্য ব্লুটুথ হেডসেট জনপ্রিয়।
বহনযোগ্য হার্ডডিস্ক সঙ্গে রাখতে পারেন বড় আকারের ফাইল সংরক্ষণের জন্য। গিগাবাইট পেরিয়ে এখন এ ধারণক্ষমতা টেরাবাইটে গিয়ে ঠেকেছে।

post by usman gony

www.swadeshnews24.com

সোর্সঃ ইন্টারনেট

No Responses

Write a response