সাহারার কালো টাকায় চলছে বাংলাদেশের ক্রিকেট দল

bdcricket_sakib_swadeshnews24এই শিরোনামে আজ একটি খবর দিয়েছে কলকাতার একটি অনলাইন নিউ পোর্টাল।

অনলাইনটি লিখেছে, ‘সাহারা ইন্ডিয়া’ থেকে ‘সাহারা বাংলাদেশ’৷ কালো টাকায় কেনা জার্সি ধোনিরা গা থেকে থেকে ঝেড়ে ফেলেছে৷ এখন সাহারার সেই জার্সি সাকিবদের গায়ে জ্বলজ্বল করছে৷ দীর্ঘদিন ভারতীয় ক্রিকেট দলের মূল স্পনসর ছিল ‘সাহারা ইন্ডিয়া পরিবার’ নামক ভারতের এক বিখ্যাত অর্থলগ্নী সংস্থা৷ এখন অবশ্য বিসিসিআই-এর সঙ্গে কোনও সম্পর্ক নেই সাহারার৷ যদিও ভারতীয় হকি দলের সঙ্গে এখনও রয়েছে সাহারার গাঁটছড়া৷ যা নিয়ে প্রচুর বিতর্ক তৈরি হয়েছে৷ বাংলাদেশের জাতীয় ক্রিকেট দলেরও স্পনসর এই সাহারা৷ ২০১২ সালের মে মাসে বাংলাদেশের ক্রিকেট দলের সঙ্গে চার বছরের চুক্তি হয় সাহারার৷ ৯.৪ মিলিয়ন ডলারে এই চুক্তি হয়েছিল৷ এবং বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সাহারার স্পনসরশিপ নিয়েই এখন ভারতে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে৷

সুব্রত রায়কে সুপ্রিম কোর্টের গ্রেফতারির পরই সাহারার অর্থকে ‘কালো’ টাকা বলা যেতে পারে৷ এখন সেই টাকায় কিনা একটা দেশের ক্রিকেট টিম চলছে৷ এটা ঠিক, সুপ্রিম কোর্টের গ্রেফতারির নির্দেশের আগেই সাহারার সঙ্গে চুক্তি হয়েছিল বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের৷ কিন্তু সাহারা কর্তা গ্রেফতারের পর সেই চুক্তি বাতিল করা উচিত বলেই মনে করছে ভারতের ক্রীড়ামহল৷

সম্প্রতি সারদা এবং বেশকিছু বেআইনী অর্থলগ্নী সংস্থা বা চিটফান্ড নিয়ে তোলপাড় হচ্ছে গোটা ভারত জুড়ে৷ গরীব মানুষের টাকা আত্মসাৎ করার অভিযোগে অভিযুক্ত এই সংস্থাগুলি৷ সিবিআই তদন্ত চলছে৷ গ্রেফতার হচ্ছেন সাংসদ, আমলা, শিল্পীসহ তাবড় রাজনৈতিক নেতারা৷ লোকসভা-রাজ্যসভায় তুমুল বিতর্ক হচ্ছে সাহার, সারদা নিয়ে৷ সেখানে নিজেদের ভাবমূতি অক্ষুন্ন রাখতে এখনই নৈতিকতার খাতিরে সাহারার সঙ্গে সমস্ত চুক্তি বাতিল করা উচিত বাংলাদেশ ক্রিকেট টিম এবং ভারতের হকি দলের৷

সাহারা ইন্ডিয়া পরিবার৷ যার সর্বময় কর্তা সুব্রত রায়৷ যিনি বর্তমানে জেলে৷ চলতি বছরের ২৬ ফেব্রুয়ারি সুপ্রিম কোর্ট সাহারা কর্তাকে গ্রেফতারের নির্দেশ দিয়েছিল৷ ২৮ ফেব্রুয়ারি উত্তর প্রদেশ পুলিশ সুব্রত রায়কে গ্রেফতার করে৷ ২৪ হাজার কোটি আর্থিক কেলেঙ্কারির দায়ে অভিযুক্ত সাহার ইন্ডিয়া পরিবার এবং তার মালিক সুব্রত রায়৷ ২০১০ সালে প্রথমবার সাহারার বেশ কয়েকটি সংস্থার বিরুদ্ধে আর্থিক তছরুপের অভিযোগ উঠেছিল৷ এরপর সেবি তদন্ত শুরু করে৷ এবং শেষ পর্যন্ত গ্রেফতার হন সাহারা কর্তা৷ এরপর থেকেই দেশজুড়ে তোলপাড় শুরু হয় সাহারার বৈধতা নিয়ে৷– ওয়েবসাইট।

 

Posted by Ab Emon

সোর্সঃ ইন্টারনেট

No Responses

Write a response