‘লতিফ সিদ্দিকী’ সৃষ্টি’তে আওয়ামীলীগ এর ভূমিকা

লতিফ সিদ্দিকীকে নিয়ে লিখতে গিয়ে আমি নিজেই বারংবার ভারসাম্য হারিয়ে ফেলছিলাম । নিজেকে কোনভাবেই স্হির করতে পারছিলামনা । তার নামটা মুখে আসলেই মাথাটা গরম হয়ে যাচ্ছে । এখন কোনমতে নিজেকে প্রস্তুত করে কিছু না লিখেই পারছিনা ।

লতিফ সিদ্দিকী মুসলমান কি না তার চেয়েও বড় প্রশ্ন তার জন্মের ঠিক ছিলো কি না । গাছের গোড়া শক্ত না হলে যেমন গাছ বেশি নড়াচড়া করে ঠিক মানুষের জন্মে দোষ থাকলে মানুষ পার্থিব জীবনে প্রাপ্তবয়সে একটু বেশি লাফালাফি করে । আবার, তার জন্মের ঠিক থাকলেও তার জন্মের ধারা বৈধ ছিলো কি না । অর্থাত্‍ তার বাবার সংখ্যা সর্বসাকুল্যে কতজন ছিলো । তারা প্রায়ই বাসায় উন্মাদ অবস্হায় আসতো কি না এবং সাথে ‘এরশাদ’ ক্যরেক্টার টাইপ লোকজন বন্ধুরুপে আনতো কি না ।

যে নিজেও একসময় হজ্ব করেছে, আল্লাহর কাছে মাথা নত করে সেজদা করেছে, শয়তান কে পাথর মেরেছে । অথচঁ আজ সে স্বয়ং নিজেই ভয়ংকর এক শয়তানরুপে আবর্তিত হয়েছে । পবিত্র হজ্ব ও প্রাণাধিক প্রিয় বিশ্বনবী হযরতে মুহাম্মাদুর রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসসালাম সম্পর্কে ঔদ্ধত্য, অশ্লীল, নিচুঁস্হরের ও ধমকের সূরে বানোয়াট ও ভিত্তিহীন কিছু কথা বলেছে ।

আমার মতে, এই সবকিছুর মূল হচ্ছে টাকা ও ক্ষমতা তথা আওয়ামীলীগের তৃতীয় শ্রেণীর নোংরা অপ-রাজনীতি । একমাত্র এই টাকা ও আওয়ামীলীগই লতিফ সিদ্দিকী ও এর মত লোকদের পদে পদে বুকভরা সাহস দিয়ে অন্ধ করে দিয়েছে । লতিফ সিদ্দিকীকে সংসদ সদস্য হিসেবে বিশেষ নিরাপত্তা দিয়ে সাধারন মানুষ থেকে আলাদা করে বুঝানো হয়েছে-তোর জন্মটাই ভূল ।

আজকে বাঙলাদেশের একটি ‘বিশেষ’ গ্রুপের কয়েকটি পত্রিকায় একসাথে ইনিয়ে বিনিয়ে বিভিন্নভাবে উপস্হাপন করার অক্লান্ত চেষ্টা করা হয়েছে-শেখ হাসিনা খুব ধার্মিক একজন মহিলা । এক পত্রিকার সম্পাদক তো স্বয়ং নিজেই ওভার-আবেগে শেখ হাসিনাকে নিয়ে কলাম লিখে প্রথম পাতায় ছাপিয়ে দিয়েছে । আসলে এসব করা হচ্ছে স্রেফ সাধারন মুসলমানদের বিভ্রান্ত করার জন্যই । যে লোক তসলিমা নাসরিনের মত প্রকাশ্য ইসলামবিদ্বেষী, বিতাড়িত, উন্মাদ ও নষ্টচরিত্রের একজন লেখিকাকে এত ভালোবাসে যে, কিছুদিন পূর্বে তসলিমার জন্য মৃত্য হুমকি পাওয়ার পরেও তা উপেক্ষা করে অনবরত এখনো তার লেখা ছাপিয়ে যাচ্ছে ঐ পত্রিকাতেই । আজ সেই লোক ধার্মিক-দরদী সেজে শেখ হাসিনা কে ধার্মিক প্রমানে ব্যস্ত হয়ে পড়েছে । ব্যপারটা কতটুকু হাস্যকর ও স্ব-বিরোধী একবার চিন্তা করে দেখুন । আদতে, শেখ হাসিনা একজন গোড়া-ইসলামবিমুখ কুত্‍সিত নোংরা চরিত্রের মহিলা । এর রক্তে রক্তে কালো সাপের বিষ । আওয়ামীলীগ একটি নব্য-নাস্তিকতাবাদী সহিংস রাজনৈতিক দল । এদের ইতিহাস বরই করুণ । এরা রাতের আধারে হাজার হাজার আলেমদের বুকের উপরে পারা মেরে ঘুম থেকে তুলে কানে ধরে দাড় করিয়ে রেখে রাতভর মজা লুটেছে । শত শত আলেম ওলামাদের দেহ রক্তে রন্জিত করে ইতিহাসকে অস্রান্কিত করেছে । এই আজকেই লতিফ সিদ্দিকীর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ মিছিলে পুলিশ দিয়ে বুক বরাবর গুলি চালানো হয়েছে ।

একমাত্র আওয়ামীলীগ ও শেখ হাসিনার কারনেই লতিফ সিদ্দিকীর মত ভন্ড, মুখোশধারী কথিত মুসলিম এরকম ইসলামবিদ্বেষী উগ্র কথা বলার সাহস পেয়েছে । শেখ হাসিনা আগেও ইসলামবিদ্বেষীদের বিচাঁর করে নাই, এখনো করবে না । ভবিষত্‍য়েও না । শেখ হাসিনা ইসলামবিদ্বেষী নেত্রী হিসেবে পশ্চিমা রাষ্ট্রে পরিচিতি পেতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে । না হয় লতিফ সিদ্দিকী’র মত একটা জাহান্নামী পশুকে মেরে ফেলতে বাঙলাদেশের মুসলমানদের বিশেষ কিছুর প্রয়োজন নাই । সবাই একটা করে পারা দিলেও লতিফ সিদ্দিকীর হাড়-গোড় ছাইয়ের মত গুড়া গুড়া হয়ে যাবে । শুধু তাকে কিছু বলা যাচ্ছে না-আওয়ামীলীগের অত্যাচাঁর ও নিগ্রহের ভয়ে ।

সুতরাং-ইসলামবিরোধীদের রুখতে একটি বৃহত্তর স্বার্থে হলেও আপনাকে প্রবলভাবে আওয়ামী বিরোধী হতে হবে ।

বিঃ দ্রঃ লেখাটি পূর্বে মুসলিম বাংলা ব্লগে

1

No Responses

Write a response