ভারতের অস্ত ভান্ডারে রয়েছে ৮০ হতে ১০০ টি পরমাণু বোমা

২৫ জুলাই (রেডিও তেহরান) :
ভারতের
অস্ত্রভাণ্ডারে বর্তমানে ৮০
থেকে ১০০টি পরমাণু
বোমা রয়েছে এবং দেশটির
বোমা বানানোর উপযোগী সব প্লুটোনিয়ামকে পরমাণু
বোমা তৈরিতে ব্যবহার
করা হচ্ছে না। আমেরিকার
খ্যাতনামা দুই পরমাণু
বিজ্ঞানী এ তথ্য দিয়েছেন। মার্কিন পরমাণু তথ্য প্রকল্পের
পরিচালক হ্যান্স ক্রিশ্চিয়ান
এবং পরমাণু নীতি সংক্রান্ত
সিনিয়র ফেলো রবার্ট এস নরিস
বুলেটিন অব অ্যাটোমিক
সায়েন্টিসকে এ কথা বলেছেন। তারা আরো জানান, ভারত এ
পর্যন্ত বোমা বানানোর
উপযোগী প্রায় ৫২০ কিলোগ্রাম
প্লুটোনিয়াম উতপাদন করেছে। এ
পরিমাণ প্লুটোনিয়াম দিয়ে ১০০
থেকে ১৩০টি পরমাণু বোমা তৈরি করা যাবে বলে জানান
এ দুই বিজ্ঞানী। তবে, ভারত
পরমাণু বোমাবাহী নতুন নতুন
ক্ষেপণাস্ত্র তৈরি করছে এবং এ
জন্য দেশটির আরো পরমাণু
বোমার প্রয়োজন হবে বলে উল্লেখ করেন হ্যান্স
ক্রিশ্চিয়ান ও রবার্ট এস নরিস। মুম্বাইয়ের কাছে দুরভা পরমাণু
চুল্লি ছাড়াও পূর্ব
উপকূলে বিশাখাপত্তমের
কাছে দ্বিতীয় পরমাণু
চুল্লি স্থাপনের
পরিকল্পনা করেছে ভারত। কালপাক্কামের কাছে অবস্থিত
ইন্দিরা গান্ধি পরমাণু
গবেষণা কেন্দ্রে পরীক্ষামূলক
ফার্স্ট ব্রিডার পরমাণু
চুল্লি বসানোর পরিকল্পনাও
করেছে ভারত। এ চুল্লি চালু হলে ভারতের পরমাণু
বোমা তৈরির
উপযোগী প্লুটোনিয়াম
উতপাদনের
ক্ষমতা উল্লেখযোগ্যভাবে বেড়ে যাবে। ভারত আকাশ, ভূমি ও সাগর
থেকে পরমাণু
বোমাবাহী ক্ষেপণাস্ত্র ছোঁড়ার
বিষয়েও দ্রুত এগিয়ে চলেছে।
চলতি বছরের ১৯ এপ্রিল অগ্নি-
ফাইভ ক্ষেপণাস্ত্রের সফল উতক্ষেপণ করে ভারত। এ
ক্ষেপণাস্ত্র পাঁচ হাজার
কিলোমিটার দূরের
লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হানতে সক্ষম
বলে দাবি করেছে দিল্লি।
চীনের যে কোনো স্থানে আঘাত হানতে সক্ষম এ ক্ষেপণাস্ত্রের
আরো পরীক্ষা চালাতে হবে।
অগ্নি-ফাইভ
ক্ষেপণাস্ত্রকে সামরিক দিক
থেকে ব্যবহার
উপযোগী করতে আরো কয়েক বছর লেগে যাবে বলে জানান
আমেরিকার এ দুই বিজ্ঞানী। অবশ্য, অগ্নি-ফাইভ উতক্ষেপণের
পর চীন ও পাকিস্তানের
সঙ্গে বিরাজমান ভারতের
সম্পর্ক আরো জটিল হয়। অগ্নি-
ফাইভ উতক্ষেপণের এক সপ্তাহের
মধ্যে পাকিস্তান পরমাণু অস্ত্র বহনে সক্ষম শাহিন ওয়ান-
নামের মধ্যম পাল্লার
ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করে এর
জবাব দেয়।

No Responses

Write a response