পেট ভরাতে দেহ ব্যবসায় মহিলারা….

এই পোস্ট 28 of 144 পর্বে অন্তর্ভুক্ত ভালবাসার রঙ্গমঞ্চ

গ্রিসের সাম্প্রতিক অর্থনৈতিক পরিস্থিতি এতটাই জটিল আকার ধারণ করেছে যে নিজেদের পেট ভরাতে, এখন দেহব্যবসার পেশায় নেমেছেন সেখানকার মহিলারা। তবে আধঘন্টার জন্য দেহ বেচে সামান্য একটা স্যান্ডউইচ কেনার পয়সাই সংগ্রহ করতে পারছেন সেখানকার মহিলারা।

দিন কয়েক আগে করা এক সমীক্ষা রিপোর্ট বলছে দেশের আর্থিক হাল এতটাই খারাপ যে পয়সা রোজগারের জন্য এই পথে যেতে এতটুকুও দ্বিধাগ্রস্থ নন সেদেশের মহিলারা। অবস্থা এতটাই কঠিন যে মাত্র ২ ইউরো (ভারতীয় মুদ্রায় মাত্র ১৪০ টাকার) বিনিময় তিরিশ মিনিটের জন্য যৌন সংসর্গ করতে দিতে বাধ্য হচ্ছেন গ্রীক মহিলারা।

এথেন্স-এর প্যানটেইয়ন বিশ্ববিদ্যালয়ের সাহিত্যিক অধ্যাপক গ্রিগোরি লাজোস এবিষয় একটি সমীক্ষা চালিয়েছিলেন। সেখানে থেকে উঠে আসা তথ্য অনুযায়ী, সেদেশে এখন ১৮ হাজার ৫০০ যৌন কর্মী রয়েছেন। তাঁদের মধ্যে ৮০ শতাংশ মহিলাই সেদেশের নাগরিক। অধ্যাপক টাইমসকে দেওয়া এক সাক্ষাত্কারে জানিয়েছেন, নিজেদের খিদে মেটাতে সামান্য একটা চিজ পাই বা স্যান্ডউইচ কেনার জন্যেই এখন সেখানকার মহিলারা এই পেশায় নামছেন।

অধ্যাপক জানিয়েছেন মূলত দেশের অর্থনৈতিক সঙ্কট জটিল হওয়ার পরই যৌনকর্মীর সংখ্যা গ্রিসে বৃদ্ধি পেয়েছে।
এদিকে মাস খানেক আগেই গ্রিসের এক মহিলা নিজের বারো বছরের মেয়েকে এক দালালের হাতে বিক্রি করতে গিয়ে ধরা পড়েছিলেন । গ্রিসের সেই ঘটনা সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত হওয়ার পরে শোরগোল পড়ে গিয়েছিল গোটা ইউরোপে।

মেয়েকে বিক্রি করার অভিযোগে ইতিমধ্যে ৩৩ বছরের কারাদণ্ড হয়েছে ওই মায়ের। সঙ্গে ১০ লক্ষ ইউরো জরিমানাও। কিন্তু প্যানটেইয়ন বিশ্ববিদ্যালয়ের সাহিত্যিক অধ্যাপক গ্রিগোরির করা সমীক্ষা বুঝিয়ে দিল কতটা কঠিন পরিস্থিতিতে সেই সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হয়েছিলেন এক মা।

No Responses

Write a response