পাইওনিয়ারের ৬ষ্ঠ বছরে পদার্পণ

‘পাইওনিয়ার স্টুডেন্টস’ ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন’ একটি সামাজিক ও অরাজনৈতিক সংগঠন । এটি ছাত্র-কল্যাণে কাজ করে। ঠাকুরগাঁও জেলার হরিপুর উপজেলার নিভৃত ও প্রত্যন্ত একটি ইউনিয়ন; গেদুড়া ইউনিয়ন । এ সংগঠনের বিস্তার গোটা গেদুড়া ইউনিয়ন ব্যাপী। ১৯ আগস্ট, ২০১২ বনগাঁও, বরুয়াল, মেদনীসাগর সহ আশেপাশের প্রায় ৩১ জন বিভিন্ন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় ও মেডিকেল পড়ুয়া ছাত্রদের সমন্বয়ে বনগাঁও হাটে ১ম মিটিং এ উপস্থিতি এবং সিদ্ধন্তের ফলস্বরূপ জন্ম লাভ করে ‘পাইওনিয়ার স্টুডেন্টস’ ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন’। ২৮ অক্টোবর ২০১২ ,পরবর্তীতে আরেকটি মিটিং এর আয়োজন করা হয় জনাব মোঃ ওয়ালিউর রহমান এর সভাপতিত্বে। আলোচ্য মিটিং এ জনাব মোঃ এরফান আলী, জনাব মোঃ নওসাদ আলী, জনাব মোঃ মোক্তার হোসেন, জনাব মোঃ তরিকুল ইসলাম, জনাব মোঃ আবু বক্কর সিদ্দিক, জনাব মোঃ আনসারুল হক,জনাব মোঃ রহিম বাদশা সহ এলাকার অনেক গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ‌ উপস্থিত ছিলেন। তাঁরা সংগঠনের নবযাত্রা উপলক্ষে বিশেষ আলোচনা রাখেন এবং সংগঠনের সাফল্য কামনা করেন।
অবশেষে প্রস্তাবিত কমিটি নির্ধারণ করা হয়। আর এটিই সংগঠনের ১ম কমিটির স্থান লাভ করে। আলোচ্য কমিটিতে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ মোট ১০টি পদ রাখা হয়েছিল। পরবর্তীতে পদসংখ্যা বৃদ্ধি করা হয়। সংগঠনের ১ম প্রস্তাবিত কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক ছিলেন যথাক্রমে জনাব মোঃ আবুল হোসেন মাস্টার এবং জনাব মোঃ সারোয়ার হাসান।
আলোচ্য মিটিংএ সংগঠনের মূলনীতি এবং লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য নিয়ে আলোচনা করা হয়। সংগঠনের মূলনীতি রাখা হয়; “We opt to change the nation”.
ছয়টি লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য প্রণয়ন করা হয়।
লক্ষ্য ও উদ্দেশ্যঃ-
১। সংগঠনের সদস্যদের মাঝে পারস্পরিক সম্পর্কের উন্নয়ন
২। নবীনবরণ ও কৃতি শিক্ষার্থী সংবর্ধনা
৩। দরিদ্র ও মেধাবী শিক্ষার্থীদের মাঝে বৃত্তি প্রদান
৪। এলাকার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর বাৎসরিক ফলাফল পর্যালোচনা
৫। লাইব্রেরী সুবিধা প্রদান
৬। সুস্থ সংস্কৃতির বিকাশ সাধন ইত্যাদি।
আলোচ্য লক্ষ্য ও উদ্দেশ্যগুলোকে বাস্তবায়নের মাধ্যমে এ সংগঠন এগিয়ে যাচ্ছে সামনের দিকে।
৬ষ্ঠ বছরে পাইওনিয়ারের সদস্য সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়ে দ্বিগুণের ও বেশি হয়েছে। মজার ব্যাপার হল; এ সংগঠনের সদস্যবৃন্দ দেশের কোন না কোন পাবলিক ও জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। এবং সবাই গেদুড়া ইউনিয়নের অন্তর্ভুক্ত। প্রতি বছর সংগঠনের অনুপ্রেরনায় দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে অনেক ছাত্র-ছাত্রী ভর্তি হয়। ২০১৭, এ বছর প্রায় ১৭ জন শিক্ষার্থীকে পাইওনিয়ার সংগঠন সংবর্ধনা দিয়েছে যারা দেশের কোন না কোন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় বা মেডিকেল এ ভর্তির সুযোগ পেয়েছেন।
পাইওনিয়ার সংগঠন প্রতি বছর ছাত্র-ছাত্রীদের শিক্ষার প্রতি আগ্রহ সৃষ্টিতে উৎসাহ দিয়ে আসছে আনিষ্ঠানিক এবং অনানুষ্ঠানিকভাবে।
২৭ জুন, ২০১৭ বনগাঁও হাট ফাজিল মাদ্রাসা মাঠ প্রাঙ্গনে পাইওনিয়ার সংগঠন একটি ‘কৃতি শিক্ষার্থী সংবর্ধনা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। অনুষ্ঠানটি তিনটি ভাগে পরিচালনা করা হয়।
১। অলিম্পিয়াড
২। কৃতি শিক্ষার্থী সংবর্ধনা
৩। সাংস্কৃতিক সন্ধ্যা
অলিম্পিয়াড এর মধ্যে ছিল শিক্ষার্থীদের মধ্যে ক্রিকেট প্রতিযোগিতা, পঞ্চম-দশম শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের মধ্যে MCQ প্রতিযোগিতা এবং রচনা প্রতিযোগিতা।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে আমন্ত্রিত ছিলেন জনাব এম জে আরিফ বেগ, উপজেলা নির্বাহী অফিসার, হরিপুর, ঠাকুরগাঁও। সভাপতি পদে আমন্ত্রিত ছিলেন জনাব মোঃ আব্দুল হামিদ; চেয়ারম্যান , ১নং গেদুড়া ইউনিয়ন পরিষদ, হরিপুর, ঠাকুরগাঁও। জনাব আরিফ বেগ এর অনুপস্থিতিতে তাঁর পরিবর্তে অনুষ্ঠানে যোগদান করেন জনাব মোঃ রবিউল ইসলাম সবুজ, শিক্ষা অফিসার, হরিপুর উপজেলা, ঠাকুরগাঁও। প্রধান অতিথির আসনে আসীন হন জনাব মোঃ অহিদুর রহমান, সহকারী অধ্যাপক, পীরগঞ্জ সরকারি কলেজ।
অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন জনাব মোঃ তরিকুল ইসলাম, সহকারী শিক্ষক, মেদনীসাগর উচ্চ বিদ্যালয়। তিনি পাইওনিয়ার সংগঠন সম্পর্কে বলেন, ‘তারা এই পাঁচ বছরে অনেক কিছুই দিয়েছে। কিন্তু আমরা তাদেরকে কি দিতে পেরেছি? তাদের এই সময়ে সহযোগিতা প্রয়োজন’।
‘পাইওনিয়ার স্টুডেন্টস’ ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন’ শিক্ষার্থীদের কল্যাণে কাজ করে। শিক্ষার্থীদের জন্য কাজ করে। তাদের উৎসাহ প্রদান করে, তাদের অনুপ্রাণিত করতে সাহায্য করে।
শিক্ষা অফিসার জনাব রবিউল ইসলাম সবুজ বলেন, ‘ গেদুড়া একটি অবহেলিত জনপদ। এমন একটি প্রত্যন্ত এলাকায় হিরের টুকরোদের সংগঠন; সত্যি প্রশংসনীয়। এদের অনুকরণ করা উচিৎ। গোটা হরিপুর উপজেলায় এমন একটি প্রত্যন্ত এলাকায় ২০১৬ সালে প্রতিভা কিন্ডার গার্টেন সবচেয়ে বেশি বৃত্তি লাভ করে। আমি মনে করি তাদের অনুপ্রেরণা এখানে সাহায্য করেছে। সংগঠন তার ধারাবাহিকতা আজীবন ধরে রাখুক এমন প্রত্যাশা রইল’। তিনি উপজেলার প্রত্যেকটি শিশুর হাতে একটি করে বৃক্ষের চারা বিতরণ করার অঙ্গিকার করেন।
সংগঠনকে সামনের দিকে এগিয়ে নেয়ার জন্য পাইওনিয়ারের সদস্যবৃন্দ আন্তরিকভাবে কাজ করে যাচ্ছে।
পাইওনিয়ার সংগঠন সম্পর্কে জনাব মোঃ অহিদুর রহমান বলেন, ‘ সংগঠনের প্রতিষ্ঠাকালীন সময় থেকেই আমি এর সম্পর্কে অবহিত। তবে এর পূর্বে সংগঠনের কোন অনুষ্ঠানে উপস্থিত হতে পারিনি। এইবারই প্রথম মহতী উদ্দোগটি দেখার সুযোগ হল। সংগঠনের কার্যাবলী দেখে, সত্যি আমি অভিভূত। এ যুগের সাথে যারা তাল মিলিয়ে চলতে পারেনা তারা এ যুগে টিকে থাকতে পারেনা। শিক্ষা কি? কোন প্রাতিষ্ঠানিক জ্ঞান বা এ(+) পাওয়া শিক্ষা নয়। শিক্ষা হচ্ছে আচরণের কাঙ্ক্ষিত ফল। আমি সংগঠনের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্যকে সাধুবাদ জানায়’। এছাড়া তিনি সংগঠনে সহযোগিতার আশ্বাস দেন।
তিনি আরও বলেন, ‘ সুস্থ্য দেহে সুস্থ্য মন এরই নাম স্বাস্থ্য। তিনি অভিভাবকদের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘ শিক্ষার্থীদের খেলাধুলার জন্য একটা নির্দিষ্ট সময় প্রয়োজন’।
এরপরই PSC/JSC/SSC পর্যায়ে কৃতি শিক্ষার্থীদের মাঝে ক্রেস্ট প্রদান করা হয়। এছাড়া অলিম্পিয়াড, ক্রীড়া , এবং রচনা প্রতিযোগিদের ১ম ও ২য় স্থান অধিকারকারীদের পুরষ্কার প্রদান করা হয়।
পাইওনিয়ার সংগঠনের বর্তমান সভাপতি জনাব মোঃ সামিউন বাশির বলেন, ‘ এলাকার শিক্ষার্থীদের জন্য পাইওনিয়ার সদা সচেতন। আমাদের শিক্ষিত কর্মী রয়েছে। দরকার সহযোগিতার। আমরা সদস্যরা প্রতি মাসে পঞ্চাশ টাকা করে চাঁদা তুলে একটি ফান্ডের ব্যবস্থা করেছি। কিন্তু এটা যৎসামান্য। সুতরাং সকলের সহযোগিতা কামনা করি’।
এছাড়া সমাপনী বক্তব্য রাখেন গেদুড়া ইউনিয়ন পরিষদ এর সম্মানিত চেয়ারম্যান জনাব মোঃ আব্দুল হামিদ। তিনি বলেন, ‘ গার্ডিয়ানরা যদি সচেতন না হন তাহলে সমাজের উন্নয়ন সম্ভব না। সচেতন গার্ডিয়ানদের অবশ্যই দরকার। শিক্ষাই জাতির মেরুদন্ড। সুতরাং ছেলেমেয়েদের মাঝে শিক্ষার আলো প্রজ্বলিত করতে এলাকার গার্ডিয়ানদের এগিয়ে আসা উচিৎ। পাইওনিয়ার সংগঠন এর ব্যাপারে তিনি এ সংগঠন গোটা ইউনিয়ন ব্যাপী বিস্তৃত হবে; এমন আশ্বাস দেন। শিক্ষার আলো চারিদিকে ছড়িয়ে পড়বে। এছাড়াও পাইওনিয়ার সংগঠনের কার্যাবলী ত্বরান্বিত করতে তিনি সংগঠনকে পঞ্চাশ হাজার টাকা অনুদান দেয়ার অঙ্গিকার করেন।
অনুষ্ঠান এর শেষ পর্বে সাংস্কৃতিক সন্ধ্যার আয়োজন করা হয়। সাংস্কৃতিক পর্বে বিভিন্ন ধরনের ইভেন্ট রাখা হয়। যেমন- দেশের গান, কৌতুকাভিনয়, কাবিতা আবৃত্তি, নাটিকা এছাড়া চাঁপাইনবাবগঞ্জ এর বিখ্যাত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ‘গম্ভীরা’র আয়োজন করা হয়।

1

No Responses

Write a response