দীর্ঘসময় কাজের চাপ বাড়িয়ে দেয় ধূমপানের ইচ্ছা

দীর্ঘসময় কাজের চাপ বাড়িয়ে দেয় ধূমপানের ইচ্ছাঅনেক ধূমপায়ীকে বলতে শোনা যায়- ধূমপান করলে স্ট্রেস কমে, অথবা কাজের মাঝে ধূমপানে তারা স্বস্তি বোধ করেন। এবং সব সময়েই এটা দেখা গিয়েছে যে অতিরিক্ত কাজের চাপে থাকা ধূমপায়ীরা সহসা ধূমপান ছাড়তে পারেন না। বরং কাজের চাপের সাথে সাথে বাড়তে থাকে তাঁদের ধূমপানের মাত্রা। ব্যাপারটা কি আসলেই কাকতালীয়? নাকি আছে কোন বৈজ্ঞানিক ভিত্তি? এই বিষয়টাই এবার খুঁজে বের করার চেষ্টা করেছেন বিজ্ঞানীরা।

বহু বছর ধরেই স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা ধূমপানের ক্ষতিকর দিক সম্পর্কে মানুষকে সতর্ক করে আসছেন। এবার দীর্ঘ সময় ধরে কাজ করার সঙ্গে ধূমপানের সম্পর্ক খুঁজে পেয়েছেন গবেষকরা। ইংল্যান্ডের একদল গবেষক তাদের দীর্ঘ গবেষণার পর জানিয়েছেন, ধূমপান বৃদ্ধির কারণ হল দীর্ঘক্ষণ কাজ করা। গবেষণা থেকে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী বলা যায়, ধূমপায়ীরা সাধারণত মানসিক চাপ কমানোর উপায় হিসেবে ধূমপান উপভোগ করেন। আর দীর্ঘ সময় ধরে কাজ করার ফলে বাড়তি যে মানসিক চাপ তৈরি হয় তা তাদের ধূমপানের চাহিদাও বাড়িয়ে দেয়।

বিষয়টি ব্যাখ্যা করে গবেষক দলের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, যখন ধূমপায়ীরা সপ্তাহে ৪০ ঘণ্টার বেশি কাজ করেন, তখন তাদের ধূমপান ত্যাগের সম্ভাবনা খুবই কমে যায়। যেহেতু তাদের কাজের সময় বেড়ে যায়, তাই তারা ধূমপান ত্যাগে অনাগ্রহী হয়ে ওঠেন। প্রায় ১৯ বছরের গবেষণায় প্রায় ৩০ হাজারেরও বেশি মানুষের ধূমপানজনিত আচরণ পর্যালোচনা করা হয়। গবেষণার ফলাফলে দেখা গিয়েছে, সপ্তাহে ৪০ ঘণ্টা কাজ করেন এমন ব্যক্তিদের তুলনায় যারা সপ্তাহে ৪০-৬০ ঘণ্টার বেশি কাজ করেন তাদের ধূমপান ত্যাগের হার অর্ধেকেরও কম।

এ প্রসঙ্গে গবেষকদের পক্ষ থেকে জানান হয়েছে, এইভাবে ধূমপানের মাত্রা বৃদ্ধি পাওয়ার জন্য দীর্ঘ সময় কাজ করার ক্ষমতা কমে যায় এবং মানসিক চাপ বৃদ্ধি পেয়ে বিভিন্ন অসুখ হওয়ার প্রবণতা দেখা যায়।

সোর্সঃ ইন্টারনেট

No Responses

Write a response