গুগল এডসেন্স VS বিডভার্টাইসার(ধারাবাহিক পর্ব-১)

কেমন আছেন সবাই।আমি আজকে যে বিষয়টি নিয়ে শুরু করতে চাচ্ছি তা অনেকটাই বিতর্কের বিষয় ।কারন টা আমি আর নাই বলি কারন টা আপনারা অনেকেই জানেন কে সেরা। তবে প্রত্যাক্ষভাবে বলবনা কে সেরা আমার পোস্ট এবং কিছু চিরন্তন সত্য যুক্তির মাধ্যমে আপনারাই পোস্টটি পড়ার পরে কমেন্ট করবেন কে সেরা আর কে পিপল ফ্রেন্ডলি।

আমরা জানি এড নেটওয়ার্ক খুবই গুরুত্বপুর্ন একজন ব্লগার বা সাইট এডমিনের জন্য। কারন একমাত্র এই পদ্দতিতে সব থেকে সহজে আর্নিং করা যায় নিজেদের শখের বসে তৈরি করা ব্লগ বা ওয়েবসাইট থেকে।যা হোক আমরা আগে জানি গুগল এডসেন্স সম্পর্কে ।গুগল এডসেন্স হল গুগলের একটি এড সার্ভিস। যা সরাসরি গুগল নিয়ন্ত্রন করে।নিয়ন্ত্রন করেনা বলতে গেলে মানুষকে অধিকাংশ সময় হয়রানির শিকার করে।আপনি যদি কখনো গুগল এডসেন্স পেয়ে থাকেন আর এটা নিয়ে কাজ করেন তাহলে বুঝবেন। আপনি কাকে নিয়ে আপনার ক্যারিয়ার গড়তে যাচ্ছেন। যার এক মিনিটের ও ভরসা নাই।

তবে গুগলের যে দিক গুলা না বললেই নেই সেটা হল নিশ্চয়তা। আপনি যদি গুগলের এই এড সার্ভিস টি ব্যবহার করেন তাহলে টাকা পেমেন্টের ক্ষেত্রে এর চেয়ে ভালো এবং নিশ্চিত আর কোনটি পাবেন না ইন্টারনেট জগতে। তাদের প্রত্যেকটা কাজ অনেকটাই শুদ্ধভাবে পরিচালিত হয়। তাই এক দিক থেকে গুগলের সার্ভিস বিশ্বসেরা।

images

আসুন জানি গুগলের অল্টারনেট অপশন অর্থাৎ বিডভার্টাইজার সম্পর্কেঃ-বিডভার্টাইজার হল আরেক টি এড কোম্পানী । যা ২০১১ সালে তাদের এড সার্ভিস শুরু করে। তাদের মোটামুটি ইন্টারনেটে ভালোই স্বায়িত্ব এবং বিশ্বাস যোগ্যাতা আছে। তারা দীর্ঘ ১৫ বছর ধরে তাদের কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। তাদের ব্যাপারে তেমন একটা আর্জি বা আপত্তি পাওয়া যায় নি।

তাদের সার্ভিস টি প্রায় গুগলের এডসেন্সের মত। তাদের প্রত্যেকটি এড ক্লিক এর জন্য ০.০১ ডলার পে করে। যা কিনা অনেক টা তুলনা মূলকভাবে ভালো। যা আপনি অন্যে কোন সার্ভিস ব্যবহার করে না পাওয়ার সম্ভবনা বেশি। তারা বিভিন্ন ব্লগ বা ওয়েবসাইটে এড দিয়ে থাকে নির্দিষ্ঠ কিছু ক্যাটাগরি ভিত্তিক। তারা একটি সাইটের ক্যাটাগরি গুলো এবং কিওয়ার্ড দেখে রিলেটেড এড ডিসপ্লে করে থাকে যার কারনে সহজেই একজন ব্লগার তার সাইট থেকে প্রচুর পরিমানে আর্নিং করতে পারে।

যা হোক আজকে আমি কিছু তাদের সুবিধা-অসুবিধা নিয়ে আলোচনা করবো।

 

বিডভার্টাইসার এর সুবিধা গুলো

১-এটি পেতে অনেকটা সহজ এবং যে কোন সাইটে এড বসিয়ে সহজেই আপনি এর থেকে আর্নিং শুরু করতে পারবেন। যা কিনা গুগল থেকে স্বপ্নেও চিন্তা করা যায় না। এবং সব থেকে বড় কথা তাদের একাউন্ট করার পর পরই আপনি আপনার সাইটে এড বসাতে পারবেন এবং সাথে সাথে আপনার আর্নিং শুরু করতে পারেন।

২- এটি প্রায় ১৫ বছর ধরে তাদের এড সার্ভিস দিয়ে যাচ্ছে এবং তারা হাজার হাজার পাবলিশার কে ঐ ২০০১ সাল থেকে টাকা পেমেন্ট করে আসতেছে। কোন স্কামিং এর রেকর্ড নেই। যা নিঃসন্দেহে কতটা বিশ্বাসযোগ্য তা আর বলার অপেক্ষা রাখেনা।

৩-তাদের এলেক্সা র‍্যাংক   বর্তমানে ৯১৮ যা সহজেই বলে দেয় সাইটটি পুরো পৃথিবিতে টপ হাজারের মধ্যে আছে এবং গুগলে এর পেজ র‍্যাংক ৫ যা কিনা সাইট কেমন তা সহজেই প্রমান করে

৪- আপনি কি নিয়ে লিখছেন তা কিন্তু সমস্য না আপনি আপনার ব্লগে লেখা চালিয়ে যান কারন তারা আপনার লেখাগুলো থেকে যে কিওয়ার্ড গুলো খুব গুরুত্বপূর্ন সেগুলোকে বাছাই করে আপনার সাইটে এড ডিসপ্লে করবে। সুতরাং আপনি আপনার লেখার ক্ষেত্রে একদম বাধামুক্ত তবে সব সময় খেয়াল রাখবেন তাদের যে ক্যাটাগরি গুলো সার্ভিস দিয়ে থাকে সেগুলো রিলেটেড লিখার জন্য যাতে আপনি সহজেই আর্নিং বাড়াতে পারেন।

৫- আপনার একাউন্ট এর টাকা গায়েব হওয়ার মত কোন কারন নেই কারন গুগল কোন স্কামিং বা আপনার নিছক ভুল পেলেই তারা আপনার ডলার সহ আপনার একাউন্ট ব্যান করে দিবে যা কিনা বিডভার্টাইজার কখনো করবেনা।

৬- তাদের সব থেকে বড় সুবিধা হল এত সব সুবিধা দেওয়ার পরেও তারা কিন্তু Per click এ কম পেমেন্ট করেনা। per Click তারা আপনাকে ০.০১ ডলার পে করে। যা কিনা আপনার যদি নূন্যতম একটা ওয়েবসাইট থেকে এবং ভিসিটর প্রতিদিন ২০০০ থেকে ১০০০০ এর মধ্যে রাখতে পারেন। তাহলে আর কি আপনার আর্নিং আর ধরে কে। এছারা এর পাশাপাশি যদি আপনার আরো কোন একটা আর্নিং সার্ভিস ব্যবহার করে থাকেন তাহলে আর আপনার আর জীবন চলার ক্ষেত্রে চাকরি খুজতে হবেনা।

৭-তারা টপ লেভেলের সাইট ডোমিন বাদেও যে কোন ডোমিন সাপোর্ট করে। যদি আপনার .COM /.NET/.ORG ইত্যাদি ডোমিনের সাইট না ও থাকে আপনি শুধু .TK/.Co/.CC আরো অনেক ফ্রি ডোমিন ওয়ালা সাইট ব্যবহার করেও আপনি আপনার আর্নিং শুরু করতে পারেন।

৮-তাদের হাজার হাজার পাবলিশারস এবং এডভার্টাইসারদের দিকে খেয়াল করলেই বুঝা যায় কখনো কোন স্কামিং সাইট এত বছর ধরে সফলতার সাথে কোন ব্যবসা চালিয়ে আসতে পারতনা।

৯- সব থেকে বড় কথা হল সবার আগে একজন ব্লগার যে চিন্তা করে সেটা হল টাকার Withdraw এবং পেমেন্ট ওয়ে এর ব্যাপারে। এই ক্ষেত্রে তারা বাংলাদেশে সাপোর্ট করে প্রায় সবগুলা পেমেন্ট ওয়ে আছে।

এছারা নীচে একটা পেমেন্ট প্রুফ দেওয়া হল যাতে বুঝা যায় তারা কতটা বিশ্বাসযোগ্য

Screenshot_12

 

যা হোক এতক্ষন তো দেখলেন কার কতটুকু সুবিধা এবং অসুবিধা তার পরেও আপনি কী ডিসিশন নিবেন আপনার নিজের কাছেই উত্তর টা থাকুক।

 

আমি এটা নিয়ে একটা চেইন টিউন করবো বলে আশা করছি।তাই আমার নেক্সট পোস্টে নিয়ে আসব

২-বিডভার্টাইসারের সম্পর্কে খুটিনাটি

৩-কীভাবে ব্লগারের টাইটেলের নিচে আপনার বিডভার্টাইসার এড বসাবেন

৪-কীভাবে ওয়ার্ডপ্রেস সাইটের হেড এবং পোস্ট এ বিডভার্টাইজার এর এড বসাবেন

৫ -কীভাবে এড ইঞ্জেকশন ব্যবহার করে আপনার ওয়ার্ডপ্রেস সাইটে এড বসাবেন

৬-কীভাবে বিডবার্টাইজারে আপনার আর্নিং বাড়াবেন

 

ইচ্ছে করলে আপনারা বিডভার্টাইজার এড আপনার ওয়েবসাইটে কেমন দেখাবে তা দেখতে আমার সাইট টি দেখতে পারেন।

এছাড়া এ সম্পর্কে যারা সত্যি আগ্রহি তাদের কোন প্রয়োজনে দরকার লাগলে আমার সাথে যোগাযোগ করতে পারেন

ফেসবুকে

টুইটারে

স্কাইপি:jakaria329

1

No Responses

Write a response