গিনেস বুক অফ ওয়াল্ড রেকডস>>পপ সম্রাট মাইকেল জেকশান এর মূর্তি

এই পোস্ট 9 of 24 পর্বে অন্তর্ভুক্ত গিনেস বুক অফ ওয়াল্ড রেকডস


পপসম্রাট বলেই বিশ্বের
কোটি কোটি দর্শকের কাছে পরিচিত
তিনি। তার গান,
গায়কি ভঙ্গি এবং নৃত্য দেখে মুগ্ধ
হননি, এমন লোক খুঁজে পাওয়া মুশকিল।
তার গানের অ্যালবাম প্রকাশিত হলেই বিশ্বের কোটি কোটি মানুষ
হুমড়ি খেয়ে পড়ত তা সংগ্রহের জন্য।
পাঠক, ইতিমধ্যে নিশ্চয়
ধরতে পেরেছেন বিখ্যাত এই
সঙ্গীতশিল্পীর নাম মাইকেল
জ্যাকসন। কৃষ্ণাঙ্গ এই সঙ্গীতশিল্পী ছিলেন অসংখ্য তরুণের
আদর্শ। জীবিতকালে বিশ্বজুড়ে যেমন
তার জনপ্রিয়তা ছিল আকাশসমান,
মৃত্যুর পরও ছিল একই ধারায়
তা বহমান। জনপ্রিয়তায় একটুও
ভাটা পড়েনি মাইকেলের। তাই তো ভক্তকুল তাকে আজও স্মরণ
করে নানাভাবে। তাকে অবলম্বন
করে নতুন কোনো রেকর্ড গড়ার
কাজে আবার লিপ্তও অনেকে। গত ২৮
জুলাই এই পপসম্রাটের বিশাল
প্রতিমূর্তি গড়ে গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসে নাম অন্তর্ভুক্ত
করার আবেদন জানিয়েছেন ভারতের
তামিলনাড়ূ রাজ্যের আর চন্দ্র
সেকারন। ধূসর বর্ণের দামি পাথর
দিয়ে তৈরি মাইকেল জ্যাকসনের এই
প্রতিমূর্তিটির উচ্চতা বারো ফুট। আর এটির ওজন সাড়ে তিন টন!
ধারণা করা হচ্ছে, বিশ্বের অন্য
কোথাও দামি পাথর দিয়ে জ্যাকসনের
এত বড় প্রতিমূর্তি আর
তৈরি করা হয়নি।
আর চন্দ্র সেকারন মূলত তামিলনাড়ূর ধূসর বর্ণের দামি পাথর ব্যবসায়ী।
ছিলেন মাইকেল জ্যাকসনের
অসাধারণ ভক্ত। জ্যাকসনের মৃত্যুর
খবর শুনে বিশ্বের
কোটি কোটি ভক্তের মতো তার হৃদয়ও
ব্যথায় ভরে ওঠে। দীর্ঘদিন হলো তিনি ভাবছিলেন, পপসম্রাটের
জন্য ব্যতিক্রমী কিছু করতে। হঠাৎ
তার মাথায় আসে, পাথরের
মূর্তি গড়েও জ্যাকসনকে স্মরণ
করা যায়। এর সঙ্গে তার নামটাও
ছড়িয়ে পড়বে সারাবিশ্বে। ভাবনা অনুযায়ী চুপিচুপি তিনি কাজও
শুরু করেন। ক্রমে সংগ্রহ
করতে থাকেন পাথর। দিনরাত
মিলে মাত্র ছয় ঘণ্টা করে অক্লান্ত
পরিশ্রমের ফলে পঁয়তালি্লশ দিনের
মাথায় দাঁড়িয়ে যায় মূর্তিটি। তবে এই প্রতিমূর্তিটি গড়তে নিজের
গাঁটের পয়সা মোটেও খরচ
করতে হয়নি সেকারনের। পুরো খরচ
বহন করেছেন ক্যালিফোর্নিয়ার
পুরনো ধাঁচের গানের জনপ্রিয় গায়ক
নেভারল্যান্ড ভ্যালি রেঞ্চ। সেকারনের প্রত্যক্ষ
তত্ত্বাবধানে তৈরি মাইকেল
জ্যাকসনের এই প্রতিমূর্তিটির
কথা ইতিমধ্যে ইন্ডিয়া বুক অব
রেকর্ডসে অন্তর্ভুক্ত হয়েছে।
লিমকা বুক অব রেকর্ডসেও অন্তর্ভুক্ত করার সম্ভাবনা রয়েছে।
হয়তো গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড
রেকর্ডসেও অন্তর্ভুক্ত হবে মূর্তিটি।
আর এভাবেই যুগ যুগ ধরে ভক্তদের
হৃদয়ে আজীবন বেঁচে থাকবেন
পপসম্রাট মাইকেল জ্যাকসন।

1

No Responses

Write a response