এয়ারপোর্টে হয়রানি থেকে বাঁচতে চারটি ফোন নম্বর সেভ রাখুন

image

ঘটনাটা ছিল পরশুদিনের আগের দিনের। একজন কানাডিয়ান বাঙালি দেশে বেড়াতে এসছিলেন। দেশের কাজ শেষ করে সেইদিন ফিরছিলেন। শাহজালাল বিমানবন্দরে বোর্ডিং শেষ করে বিমানে ওঠার আগ মুহূর্তে বিশেষ সিকিউরিটিতে
তিনি আটক হন। তার কাছ থেকে চার হাজার সামথিং ডলার উদ্ধার করেন বিমানবন্দরের কর্মীরা। তাকে বলা হয় এই অর্থ আপনি নিয়ে যেতে পারবেন না। আপনার কোনো রিলেটিভের
কাছে দিয়ে যান। বোর্ডিং এর পরে যে স্টেজে তাকে আটক করা হয় সেখান থেকে তারপক্ষে কোনো রিলেটিভের নিকট আসা সম্ভব না।

কিংবা বলা যায় পৌঁছানো সম্ভব না।
এখানে একটা জিনিস বলে রাখি, ৫ হাজার
ডলারের বেশি নিয়ে কেউ যদি দেশে প্রবেশ করেন তাহলে তাকে একটা কাগজের টিকচিহ্নের মতো স্থান পূরণ করে জানাতে হবে। আবার দেশে এসে
খরচ করার পরে বাকি অর্থ (৫ হাজার ডলারের ওপর) নিয়ে যেতে হলে একইভাবে জানাতে হবে। তবে ৫ হাজারের নিচে হলে সেটা জানানোর প্রয়োজন নেই। কিন্তু এই নিয়ম অনেকেরই জানা থাকে না। বোর্ডিং এর পরে চেকিং এর সময় ৫ হাজার বা কম থাকুক যদি বলা হয় আপনি এই ‘অর্থ নিয়ে যেতে পারবেন না’
তাহলে ডলারগুলো সেই বিমানবন্দরের কর্মীদের নিকটে জমা না দিয়ে উপায় থাকে না। আমাদের রংপুর অঞ্চলের প্রবাদ অনুযায়ী ‘শিয়ালের কাছে মুরগি আদি’ টাইপের ব্যাপার হয়ে যায় আর কি।
যাই হোক, সেই কানাডা প্রবাসী বাঙালিকেও প্রায় চারহাজার সামথিং ডলার জমা দিয়ে যেতে হবে। উপায় কি? তার মাথায় হুট করে একটা বুদ্ধি
আসে ফেসবুকে ম্যাজিস্ট্রেটদের একটি ফ্যান পেইজ দেখেছিলেন। তিনি দ্রুত মোবাইলে লগিন করে সেই পেজে চলে যান সেখানে তিনি একটি
ফোন নম্বর পান সেই ফোন নম্বরে ফোন দেওয়ার কয়েক মিনিটের মধ্যে সেখানে ম্যাজিস্ট্রেটের দল উপস্থিত হয়।

এরপর কি? গল্পতে যেমন হয় আর কি। সেই প্রবাসী বাঙালি নিজের ডলার নিয়েই বিমানে ওঠেন। আর সেই হয়রানি কারী বিমানবন্দরের কর্মী কিন্তু রেহাই
পান নি। তাকে গ্রেপ্তার করে আনা হয়।
এসবকিছু ঘটে মাত্র ১৫ মিনিটের মধ্যে। সেই ফ্যান পেজটির লিংক 
https://www.facebook.com/magistrates.all.airports.bangladesh (Magistrates, All Airports of
Bangladesh)

এসব গল্পের মতো শোনালেও আসলে গল্প নয়। শাহজালাল বিমানবন্দরে এইরকম অসংখ্য গল্পের মতো ঘটনাই ঘটছে, আমাদের ম্যাজিস্ট্রেট ভাইদের জন্যই। ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ ইউসুফকে আমি ফোন দিয়েছিলাম
সেদিন একটা সংবাদের জন্য। তখন এই
বিমানকর্মীকে আটক অবস্থায় এই ঘটনা
শোনান। তিনি সেদিন আরো তিনটি ফোন নম্বর যুক্ত করে দেন। ফোন নম্বরগুলো যাদের.প্রয়োজন সেভ করে রাখতে পারেন। অপরকে সাজেস্ট করতে পারেন। আর যদি মনে হয় কারো
উপকারে আসবে তাহলে পোস্টটি শেয়ারও করতে পারেন ।
ফোন নম্বরগুলো – 01866544444,
01866566666, 01787661144,
0178766116

1

No Responses

Write a response