এশিয়ায় তথ্যপ্রযুক্তি সূচকে পিছিয়ে বাংলাদেশ

এশিয়ায় তথ্যপ্রযুক্তি সূচকে পিছিয়ে বাংলাদেশ ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণের জন্য সরকার প্রযুক্তিগত নানান উন্নয়নের কথা বললেও বুধবার প্রকাশিত এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের (এডিবি) একটি প্রতিবেদনে এশীয় ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের ২৮ দেশের মধ্যে তথ্যপ্রযুক্তিতে বাংলাদেশ পিছিয়ে রয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে। একই সাথে অর্থনৈতিক পরিস্থিতি, শিক্ষা, উদ্ভাবনে এশিয়ার মধ্যে বাংলাদেশ অনেক পিছিয়ে রয়েছে। এই দেশগুলোর মধ্যে তথ্যপ্রযুক্তিতে বাংলাদেশের চেয়ে পিছিয়ে শুধু কম্বোডিয়া ও মিয়ানমার। শিক্ষায় পাকিস্তান, নেপাল ও কম্বোডিয়ার চেয়ে কিছুটা এগিয়ে রয়েছে বাংলাদেশ। উদ্ভাবনে মিয়ানমার ছাড়া সব দেশের চেয়েই বাংলাদেশ পিছিয়ে রয়েছে। ফলে সার্বিকভাবে জ্ঞানভিত্তিক অর্থনীতিতে বাংলাদেশের অবস্থান ২৭তম। এর নিচে রয়েছে শুধু মিয়ানমার।

বুধবার সচিবালয়ে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের কাছে এই প্রতিবেদন জমা দেন এডিবির ভাইস প্রেসিডেন্ট বিন্দু এন লোহানি। মোট ২৮ দেশের ওপর গত এপ্রিলে এডিবি প্রতিবেদনটি তৈরি করে বলে অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে।
বৈঠক শেষে অর্থমন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, এডিবির ভাইস প্রেসিডেন্ট বলেছেন, চারটি বিষয়েই বাংলাদেশের অবস্থান নিচের দিকে। তবে তিনি এ-ও বলেছেন, এগুলোতে বাংলাদেশের অগ্রগতি ভালো এবং এডিবি এই খাতগুলোর উন্নয়নে বাংলাদেশের সঙ্গে থাকবে। অর্থমন্ত্রী বলেন, স্বল্পোন্নত দেশ (এলডিসি) থেকে মধ্য আয়ের দিকে বাংলাদেশের যাত্রা শুরু হয়েছে। এখন দরকার ভালো একটা উত্তরণ। তথ্যপ্রযুক্তি ও শিক্ষায় ভালো করতে পারলে এ উত্তরণ অনেকটাই সহজতর হবে।

এডিবির প্রতিবেদন অনুসারে শিক্ষায় দক্ষিণ কোরিয়া, উদ্ভাবনে সিঙ্গাপুর এবং তথ্যপ্রযুক্তিতে প্রথম অবস্থানে রয়েছে চীন। সার্বিকভাবে জ্ঞানভিত্তিক অর্থনীতিতে এশিয়ার শীর্ষে চীন, এরপর হংকং আর তৃতীয় স্থানে জাপানের অবস্থান। এই সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান ২৭তম। এশীয় ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের গড় মান ৪ দশমিক ৩৯। বাংলাদেশের মান ১ দশমিক ৪৯। বাংলাদেশের চেয়ে পিছিয়ে শুধু মিয়ানমার। শ্রীলঙ্কার ১৮তম, ভারতের ২২তম, পাকিস্তানের ২৩তম এবং নেপালের অবস্থান ২৬তম।

তথ্যপ্রযুক্তি উপসূচকে বাংলাদেশের অবস্থান ২৬তম। এশীয় ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় দেশগুলোর গড় মান যেখানে ১০-এর মধ্যে ৪ দশমিক ২৮, বাংলাদেশের মান সেখানে ১ দশমিক শূন্য ১। বাংলাদেশের নিচে ২৭তম অবস্থানে থাকা কম্বোডিয়ার মান দশমিক ৭৪। এ উপসূচকে পাকিস্তানের মান ৩ দশমিক ৬, শ্রীলঙ্কার ২ দশমিক ৮, ভারতের ১ দশমিক ৯ এবং নেপালের ১ দশমিক শূন্য ১।

উদ্ভাবন খাতে বাংলাদেশের অবস্থান ২৭তম, আর সূচক ১ দশমিক ৬৯। ২৮তম অবস্থান নিয়ে সবচেয়ে কম সূচক মিয়ানমারের, ১ দশমিক ৩। এশীয় ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের গড় সূচক ৪ দশমিক ৫। এই খাতে ভারতের অবস্থান একাদশ এবং সূচক ৪ দশমিক ৫। এরপর শ্রীলঙ্কার সূচক ৩ দশমিক শূন্য ৬, পাকিস্তানের ২ দশমিক ৮৫ এবং নেপালের ২ দশমিক ২৩।

সোর্সঃ ইন্টারনেট

মন্তব্যগুলি

মন্তব্যগুলি

1 Star2 Stars3 Stars4 Stars5 Stars (No Ratings Yet)
Loading...