আপওয়ার্কে কাজ শুরু করার আগে জেনেনিন কিছু গুরুত্বপূর্ণ টিপস (নতুনদের জন্য)

image

ফ্রিল্যান্সিং করার জন্য সবচেয়ে বড় ও নির্ভরযোগ্য মার্কেটপ্লেস গুলোর মদ্ধে একটি। বাংলাদেশের অনেকেই এখন এখানে জড়িত।  মুক্ত পেশা হিসেবে এখানে যে-কেউ সফল হতে পারেন। তবে অনেকেই মনে করেন আপওয়ার্কএ  কাজ পাওয়া অসম্ভব কঠিন একটা ব্যাপার। কিন্তু এটা মোটেই ঠিক নয়। সঠিক গাইডলাইন বা দিকনির্দেশনা পেলে আপনিও সফল হতে পারেন আপওয়ার্কএ  এবং হয়ে উঠতে পারেন একজন সফল ফ্রিল্যান্সার। তবে ফ্রিল্যান্স মার্কেটপ্লেস সাইটে কতগুলো গুরুত্বপূর্ণ বিষয় আছে, যা ভালোভাবে না জানার কারণে অনেকে সফলভাবে ফ্রিল্যান্সিং শুরু করতে পারেন না। এ জন্য জানতে হবে ফ্রিল্যান্সিংয়ের সুবিধা-অসুবিধাসহ সবকিছু। তাই নতুনদের জন্য আপওয়ার্ক এর কিছু টিপস।

প্রোফাইল তৈরী : 
অনেক ফ্রিল্যান্সার (নতুন) আছেন যারা জব ক্যাটাগরি ইনটারেস্টে অনেকগুলো এরিয়া সিলেক্ট করেন। এটি করবেন না কারন এতে করে আপনার স্পেশালিটি বুঝা যায়না। আপনি যদি ডাটা এন্ট্রির কাজ করতে চান, তাহলে শুধু সেটি সিলেক্ট করুন। কেউ যদি ওয়েব সংশ্লিষ্ট কোন কাজ করতে চান, তাহলে শুধু সেটি সিলেক্ট করুন। Resume এ আপনার স্কিলগুলো লিখতে পারেন। ইংরেজি স্কিল (সেলফ এসেস্ট) এ অনেকে ৫ এ ৫ দিয়ে রাখেন। আপনি যদি আসলেই দক্ষ না হন, তবে এখানে ৩ দিবেন। এক্ষেত্রে ৪ কেও খুবই হাই কোয়ালিটি ধরা হয়। রেডিনেস টেস্ট ছাড়াও কমপক্ষে ৩ থেকে ৪ টি বিভিন্ন বিষয়ের উপর টেস্ট দিবেন। এতে আপনার কাজ পাওয়ার সম্ভাবনা বাড়বে (টেস্টগুলো খুবই ইম্পর্টেন্ট এবং এতে ভালো পারফর্ম করাটা জরুরী)। লক্ষ্য রাখবেন, টাইটেলটা যেন খুব বেশি লম্বা না হয় এবং টাইটেলটা দিয়ে যেন আপনার মূল দক্ষতার দিকটা প্রকাশ পায়। চার থেকে দশ ওয়ার্ডের মধ্যে টাইটেল দিবেন। আপনার রেট কত হবে বা কত দিবেন সেটি নির্ভর করে আপনার স্কিলের উপর। নতুন হলে ৫ থেকে ১০ ডলার এর মধ্যে দিতে পারেন। মনে রাখবেন, নিজেকে কখনই সহজলভ্য করবেননা। ফ্রিল্যানসিং মানে ফ্রিতে কাজ করা নয়।

 

কিছু গুরুত্বপূর্ণ টিপস

ক) আপনার  প্রোফাইল ১০০%  করুন।
খ) আপনার প্রোফাইলে সুন্দর একটি Title এবং overview ঠিক করুন।
গ) আপনার Skills and Employment History ভালভাবে যুক্ত করুন।
ঘ) আপনার নিজের করা সেরা কাজগুলো (image + Link) যুক্ত করুন প্রোফাইলে।
ঙ)  আপনি প্রোফাইলে যেটিতে দক্ষ উল্লেখ করেছেন, সে ধরনের কাজগুলোতে বিডজ) নতুন কাজে বিড করুন। ৪ থেকে ৫ জনকে ইতিমধ্যে ইন্টারভিউতে ডাকা হয়ে গেলে সেই কাজটি পাওয়ার সম্ভবনা খুবই ক্ষীণ।
ঝ) শুরুতে ছোট ছোট কাজ করে ফিডব্যাক সংগ্রহ করুন।
ঞ) কাজ পাওয়ার ক্ষেত্রে ইমোশনারলি ক্লায়েন্টকে আকর্ষণ করলে কাজ পাবেননা।
ট) বিডিং রেট বাজার রেটের চাইতে অস্বাভাবিক কমালে কাজ না পাওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে, তাতে আপনার ব্যাপারে নেগেটিভ ধারনা পাবে।
ঠ) বিড শুরু করার আগে বায়ারের রেটিং, পেমেন্ট মেথড ভেরিফাইড কিনা চেক করে নিন।
ঢ) অবশ্যই আপনার স্কাইপ অ্যাকাউন্ট রেডি করুন।ণ) ধৈয্য ও অধ্যাবসায় খুব জরুরী। একদিনে কাজ পাওয়ার আশা না করে চেষ্টা চালিয়ে যেতে হবে।

কিছু গুরুত্বপূর্ণ সাইট লিস্ট:

 Upwork Test Answers and TipsOutsourcing Income

No Responses

Write a response